মোহাম্মদ সাহেদ

রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের বাবা সিরাজুল করিম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

ইউনিভার্সেল মেডিকেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. আশীষ কুমার চক্রবর্তী রাতে জানান, গত ৪ জুলাই সিরাজুল করিমকে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করেন সাহেদ। সিরাজুল করিমের বয়স ছিল প্রায় ৭০ বছর।

ডা. আশীষ কুমার চক্রবর্তী জানান, “আমাদের বলা হয়েছিল, এর আগে তিনটি পরীক্ষায় সিরাজুল করিমের কোভিড-১৯ নেগেটিভ আসে। কিন্তু তার লক্ষণ দেখেই মনে হয়েছে কোভিড-১৯ আক্রান্ত। আমাদের এখানে পরীক্ষায় তার কোভিড-১৯ পজিটিভ আসে।”

ভর্তির দুই দিন পর সিরাজুল করিমকে আইসিইউতে নেওয়া হয় জানিয়ে ডা. আশীষ বলেন, “তার ফুসফুসে সংক্রমণ ছিল। অবস্থা খারাপ হলে দুই দিন আগে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার মারা যান তিনি।”

ওই কর্মকর্তা জানান, তাঁরা সাহেদের স্ত্রীর ফোন নম্বর যোগাড় করে সিরাজুল করিমের মারা যাওয়ার খবর দেন। পরে তাঁর মনোনীত দুজন ব্যক্তি এসে মৃতদেহ নিয়ে যায়। দুজনের কেউই তাঁদের নিকটাত্মীয় নন।

ওই কর্মকর্তা জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে সিরাজুল করিম মারা যান। তাঁরা সাহেদের স্ত্রীর ফোন নম্বর যোগাড় করে সিরাজুল করিমের মারা যাওয়ার খবর দেন। পরে তাঁর মনোনীত দুজন ব্যক্তি এসে মৃতদেহ নিয়ে যায়। দুজনের কেউই তাঁদের নিকটাত্মীয় নন।

এর আগে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তেজগাঁও থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিল। সংকটাপন্ন অবস্থায় সিরাজুল একাই হাসপাতালে ছিলেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সাহেদ বা তাঁর প্রতিষ্ঠানের কাউকে খুঁজে না পাওয়ায় বিপাকে পড়ে। সমস্যা এড়াতে তারা জিডি করে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বেসরকারি হাসপাতাল হিসেবে এই রোগের চিকিৎসায় এগিয়ে আসা রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ। ওই হাসপাতালে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ভুয়া প্রতিবেদন দেওয়ার প্রমাণ পেয়ে গত ৬ জুলাই অভিযান চালায় র‌্যাব।

ওই অভিযানে রিজেন্ট হাসপাতালে অনিয়মের নানা ঘটনা ধরা পড়ার পরদিন উত্তরায় রিজেন্ট হাসপাতালের প্রধান কার্যালয়ে ফের অভিযানে যায় র‌্যাব। দুই দিনের অভিযানে আটজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা চেয়ারম্যান সাহেদের নির্দেশে পরীক্ষা ছাড়াই করোনাভাইরাসের ভুয়া প্রতিবেদন দেওয়ার কথা স্বীকার করেছে বলে র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

এরপর রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর শাখা বন্ধের নির্দেশ দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। পাশাপাশি র‌্যাবের পক্ষ থেকে সাহেদসহ মোট ১৭ জনকে আসামি করে একটি মামলা করা হয়েছে। দুই দিনের অভিযানে গ্রেপ্তার আটজনও এই মামলায় আসামি।