করোনা

ডাঙ্গুলি কিংবা গোল্লাছুট খেলার বয়সে দুরন্তপনার কাছে বরবারই হার মেনেছে বাবা-মায়েদের বিধি-নিষেধ। মহামারী করোনায় ঘরবন্দী উচ্ছল শৈশব, তবুও খানিকটা দুরন্তপনায় মেতেছিলো মাদ্রাসা পড়ুয়া আট বছরের রাব্বী। কিন্তু করোনা থেকে ছেলে গোলাম রাব্বীকে রক্ষা করতে শিকলে বেঁধে রেখেছে মা শেফালী বেগম।

গতকাল শুক্রবার (২৬ জুন) দুপুরে বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নের রাংতা ব্রিজ সংলগ্ন এলাকার চায়ের দোকানে রাব্বীকে শিকলে বাঁধা অবস্থায় দেখা যায়। স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার সকালে রাব্বী বাড়ি থেকে বের হয়ে বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে ঘুরে রাতে বাড়ি ফেরে। এ কারণে শুক্রবার সকালে তাকে দোকানে বসিয়ে তার পায়ে শিকল বেঁধে তালা মেরে রাখেন মা।

রাব্বির বাবা রশিদ হাওলাদার জানান, ‘ওর মা ওকে শিকল দিয়ে বেঁধেছে। কারণ বাইরে বেশি ঘোরাঘুরি করলে করোনা হবে। ছেলেকে করোনা থেকে রক্ষা করতে দোকানে বসিয়ে শিকলে বেঁধে বেচাকেনা করতে বলেছে।’

তবে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা সুশান্ত বালার কাছে ঘটনাটি দুঃখজনক ও অপরাধ। তিনি বলেন, করোনার জন্য যেকোনও বাবা-মাকে সন্তানের নিরাপত্তার জন্য সাবধানতা অবলম্বন করতেই পারে। তবে শিশু অধিকার আইন ২০১৩ ধারামতে কোনও শিশুকে এভাবে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা অপরাধ।