আজ ১৬ই জুলাই স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র কারাবন্দী দিবস। ২০০৭ সালের এই দিনে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে ২০০৮ সালের ১১ই জুন দেশের ছাত্র-জনতার দাবির প্রেক্ষিতে সরকার তাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়।

আজ বৃহস্পতিবার ১৬ জুলাই বাদে মাগরিব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদ প্রাঙ্গণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র কারাবন্দী দিবস উপলক্ষ্যে দেশ ও জাতির কল্যাণে, গণতন্ত্রের উন্নয়নে ও আধুনিক উন্নত সমৃদ্ধ অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ায় অসামান্য অবদান রাখার জন্যে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা’র সুন্দর জীবন ও দীর্ঘায়ু কামনা করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের আয়োজনে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া, আজ রাত ৮টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল উপসানলয়ে এক বিশেষ প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পড়ুন- আদালতে নিজেকে করোনা রোগী দাবি করেছে সাহেদ

২০০৭ সালের ১৬ জুলাই ভোর রাতেই যৌথবাহিনী শেখ হাসিনা’র ধানমন্ডির বাসভবন সুধা সদন ঘিরে ফেলে। এরপর তাকে গ্রেপ্তার করে নিম্ন আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়ার পর পরই শেখ হাসিনাকে সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগারে নিয়ে বন্দি করে রাখা হয়। গ্রেপ্তারের আগে তার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি দুর্নীতির মামলা দায়ের করা হয়। ওইসব মামলায় দীর্ঘ ১১ মাস তাকে কারাগারে আটক রাখা হয়। ওই বিশেষ কারাগারের পাশেই সংসদ ভবন চত্বরে অস্থায়ী আদালত স্থাপন করে তার বিচার প্রক্রিয়াও শুরু করা হয়। এদিকে কারাবন্দি অবস্থায় শেখ হাসিনা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাঁর উন্নত চিকিৎসার জন্য জরুরী অবস্থার মধ্যে আওয়ামী লীগ ও এর সব সহযোগী সংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও তার শ্রেণীপেশার মানুষের পক্ষ থেকে তাকে বিদেশ পাঠানোর দাবি উঠে। এক পর্যায়ে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজনে ২০০৮ সালের ১১ই জুন জামিনে মুক্তি দেওয়া হয় কারাবন্দী আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে।

উক্ত দোয়া মাহফিল ও বিশেষ প্রার্থনা সভায় সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্য-নির্বাহী সংসদসহ সংগঠনটির আওতাধীন ইউনিটের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র কারাবন্দী দিবস উপলক্ষ্যে দেশ ও জাতির কল্যাণে, গণতন্ত্রের উন্নয়নে ও আধুনিক উন্নত সমৃদ্ধ অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ায় অসামান্য অবদান রাখার জন্যে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা’র সুন্দর জীবন ও দীর্ঘায়ু কামনা করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সকল ইউনিটকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামীকাল ১৭ই জুলাই শুক্রবার বাদ জুমা মিলাদ ও দোয়া মাহফিল আয়োজন করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন-