জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতাকারীদের উদ্দেশে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, ‘যতটুকু বলেছেন ক্ষমা চেয়ে সাবধান হয়ে যান, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করলে ঘাড় মটকে দেবো।’ শনিবার (১৪ নভেম্বর) শ্যামাপূজা উপলক্ষে চট্টগ্রাম নগরীর গোলপাহাড় মহাশ্মশান পরিচালনা পরিষদ আয়োজিত ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতাকারী ধর্মীয় সংগঠনটির নেতাদের উদ্দেশে তিনি এ কথা বলেন।

শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) রাজধানীর ধূপখোলা মাঠে তৌহিদি জনতা ঐক্য পরিষদের এক সমাবেশ থেকে ধোলাইপাড়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতা করে বক্তব্য দেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের শীর্ষ নেতারা।

ওই বক্তব্যের বিরোধিতা করে আলোচনা সভায় নওফেল বলেন, ‘দেখলাম, একটি খুব ছোট মৌলবাদি দলের নেতা দাঁড়িয়ে মঞ্চ কাঁপাচ্ছিলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিষয়েও কথা বলছিলেন। মঞ্চ কাঁপিয়ে, ভয়-ডর সৃষ্টি করে বড় গলায় যারা কথা বলছেন, তাদের উদ্দেশে বলতে চাই- মঞ্চ বেশি কাঁপাবেন না। মঞ্চ বেশি কাঁপালে পায়ের নিচের মাটিও নরম হয়ে যাবে।’

নওফেল বলেন, ‘আপনাদের হুমকি-ধামকি বন্ধ করুন। এদেশের মানুষ গণতন্ত্রকে শ্রদ্ধা করে। মৌলবাদি কথা বলা, জনমনে শঙ্কা তৈরি করা, জাতীয় প্রতিষ্ঠান এবং জাতির পিতাকে নিয়ে কথা বলার ধৃষ্ঠতা যারা দেখাবেন, তাদেরকে আমরা বলতে চাই- আপনারা বাড়াবাড়ি বন্ধ করুন। আওয়ামী লীগের কাছে, এদেশের মানুষের কাছে দ্বীনে ইসলাম সুরক্ষিত আছে। আপনাদের কাউকে সেই ঠিকাদারি দেওয়া হয়নি।’

শিক্ষা উপমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আপনারা সাবধান হয়ে যান, বাড়াবাড়ি বেশি করে ফেলেছেন। আপনাদের বাড়াবাড়ি দেখছি আর শুনছি। সরকার এবং রাষ্ট্রের ঊর্ধ্বে কেউ নয়। আওয়ামী লীগ ঘাড়ে হাত রেখে বন্ধুত্বও করতে জানে, ঘাড়ে হাত রেখে ঘাড় মটকে দিতেও জানে। সুতরাং ঘাড়ে হাত দিয়ে বন্ধুত্ব করেছি বলে, সহনশীল আচরণ দেখিয়েছি বলে, মনে করবেন না সেটা দুর্বলতা। দেশে হানাহানি করলে, আইনশৃঙ্খলা নষ্ট করলে, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করলে ঘাড় আমরা মটকে দেবো। সময় থাকতে সাবধান হয়ে যান, মৌলবাদের জায়গা এই বাংলাদেশ নয়।’

তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক কথা বলুন। কাউকে কোনও ঠিকাদারি দেওয়া হয়নি দ্বীন ইসলাম রক্ষার। সেটার দায়িত্ব মহান আল্লাহপাক রাব্বুল আলামিন সবাইকে দিয়েছেন। সুতরাং আপনারা মঞ্চ কাঁপিয়ে জাতির পিতার নামে যে কথা বলছেন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারী যেসব কথাবার্তা বলছেন, তাদের আমরা শেষবারের মতো বলতে চাই— সহনশীল আচরণকে-গণতান্ত্রিক আচরণকে দুর্বলতা ভাববেন না। আমাদের শক্তি মাটির অনেক গভীরে। মহান আল্লাহপাক রাব্বুল আলামিন আমাদের প্রত্যেককে শক্তিশালী করেছেন। মঞ্চ কাঁপিয়ে বেশি কথা বলা এই বাংলাদেশে আমরা সহ্য করবো না। যেখানে আছেন, যতটুকু বলেছেন, ক্ষমা চেয়ে সাবধান হয়ে যান, নয়তো ঘাড় মটকে দিতে বেশি সময় লাগবে না।’

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ এনে নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের সতর্ক করে দিয়ে নওফেল বলেন, ‘এই দেশে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়া যেমন আমরা কেউ সহ্য করবো না, তেমনি ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের নাম করে মানুষকে হেনস্থা করাও সহ্য করবো না। দেশে আইন আছে, আদালত আছে, সরকার আছে, সেখানে না গিয়ে যারা নানা ধরনের গুজব ছড়িয়ে আমাদের জনগোষ্ঠীর মধ্যে ভীতি ও শঙ্কার পরিবেশ আনার চেষ্টা করছেন, তাদের আমরা সাবধান হয়ে যেতে বলছি। মুষ্টিমেয় মৌলবাদি গোষ্ঠীর কাছে আমরা মাথা নত করবো না।’

এই বাংলাদেশের মানুষ অসাম্প্রদায়িক। বাংলার হিন্দু, বাংলার মুসলমান, বাংলার বৌদ্ধ, বাংলার খ্রিস্টান- অসাম্প্রদায়িক ধর্মনিরপেক্ষ পরিবেশে শান্তি ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাবে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে, যোগ করেন তিনি।

সব ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘ভয় পাওয়ার কিছু নেই, নির্ভয়ে থাকুন। কারণ আমাদের নেতৃত্বে আছেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। আমরা দেখছি— কিছু ষড়যন্ত্রকারী, মুষ্টিমেয় গোষ্ঠী সম্প্রদায়গুলোর মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি তৈরি করে শঙ্কার পরিবেশ আনার চেষ্টা করছে। কিন্তু যতদিন শেখ হাসিনার হাতে থাকবে বাংলাদেশ, ততদিন আমাদের শঙ্কার কোনও কারণ নেই।’

বাংলাদেশে ঈদ-এ মিলাদুন্নবী হবে, ঈদুল ফিতর হবে, ঈদুল আজহা হবে, শ্যামাপূজা হবে, স্বরস্বতী পূজা হবে, এই বাঙালির সব পূজাপার্বণ- ঈদ-উৎসব নির্ভয়ে নিসঙ্কোচে, শান্তিপূর্ণভাবে হবে বলে আশ্বাস দেন তিনি।