ডোনাল্ড ট্রাম্প

করোনাভাইরাস সংক্রমণের পর থেকেই বিশ্বের প্রায় সব দেশের সরকার প্রধানরা যখন নিজেরা মাস্ক পরে জনগনকে উৎসাহ দিয়েছেন, তার বিপরীত চিত্র দেখা গিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। শুরু থেকেই মাস্ক পরিধানের ঘোর বিরোধী ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এবার সেই অব্স্থান থেকে সরাসরি ইউটার্ন নিলেন ট্রাম্প।

পুরো মহামারীর সময়ে একবারের জন্যও তাকে মাস্ক পরতে দেখা যায়নি, যেন গো ধরেছিলেন কিছুতেই মাস্ক পরবেন না। এমনকি এই ভাইরাসের মধ্যেই নির্বাচনী সমাবেশ করে যাচ্ছেন। মাঠ ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন। সেই ট্রাম্প এখন বলছেন, মাস্ক পরা ভালো। তিনি নিজেও নাকি মাস্ক পরার পক্ষে। বুধবার ফক্স বিজনেস নেটওয়ার্ককে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মাস্ক প্রসঙ্গে ট্রাম্প বলেন, মাস্ক পরার ব্যাপারে আমি পুরোপুরি একমত এবং আমি মনে করি, মাস্ক পরা ভালো।

কোভিড-১৯ নিয়ে শুরু থেকেই থেকেই বিভিন্ন হাস্যকর বক্তব্য দিয়েছেন ট্রাম্প, এটিকে সাধারণ ফ্লু হিসেবে দেখার কথাও বলেছেন। করোনাকে ‘চাইনিজ ভাইরাস’ বলে কটাক্ষও করতে দেখা গিয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে। রোজ হাজার হাজার মানুষ মহামারীতে মারা গেলেও নিজ অবস্থানে অনঢ় থাকেন ট্রাম্প।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করার দরকার আছে কি-না, এমন প্রশ্নের জবাব সরাসরি না দিয়ে ট্রাম্প বলেন, দেশে এমন অনেক জায়গা আছে, যেখানে মানুষজন এমনিতেই অনেক দূরে দূরে অবস্থান করে।

তবে ট্রাম্প করোনাকে পাত্তা দিচ্ছেন না বোঝালেও নিজে কিন্তু ভয়েই আছেন। রোজ করোনা টেস্ট করান। কিন্তু তিনি আবার টেস্ট কমিয়ে দেয়ার পক্ষেও। সবমিলিয়ে করোনাভাইরাস নিয়ে তার অবস্থান এখন ধোয়াশার মধ্যে। এছাড়া হোয়াইট হাউসে কর্মীদের সংস্পর্শে আসার মাধ্যমে নিজে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে ট্রাম্প জানালেন, তার সংস্পর্শে আসার আগে অধিকাংশ মানুষেরই কভিড-১৯ টেস্ট করা হয়।

উল্লেখ্য, সবশেষ চব্বিশ ঘণ্টায় যুক্তরাষ্ট্রে রেকর্ড ৫২ হাজার বেশি মানুষের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। মোট আক্রান্ত ২৭ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। মৃত্যুর সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১ লাখ ৩০ হাজার।