সিন্ডিকেটের মাধ্যমে অবাধে হোস্টেলের সিট বাণিজ্য, শিক্ষার্থীদের ভর্তির টাকা, উন্নয়ন কাজের বরাদ্দকৃত অর্থ, উন্নয়ন পরিকল্পনার নামে কলেজ ফান্ডের টাকা আত্বসাৎ সহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ ওঠেছে সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজের কয়েকজন শিক্ষক এর বিরুদ্ধে।

বিভাগে কমিটি গঠন করে সাধারণ শিক্ষার্থীদের জিম্মি করে সিন্ডিকেট চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভীযোগ করেছে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, শিক্ষার্থীদের হোস্টেল ভর্তির টাকা এবং উন্নয়নের জন্য বরাদ্দকৃত টাকা বেশিরভাগই চলে যাচ্ছে সিন্ডিকেটের কতিপয় শিক্ষকদের হাতে। এছাড়া পুরুষ ও মহিলা হোস্টেলে চলছে অবাধে সিট বানিজ্য। প্রশিক্ষনে আসা শিক্ষকদের আবাসন সংকট ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের আবাসন সংকট নিরসনে কোনো উদ্যোগ নেই। হোস্টেল পরিচালনা কমিটিতে শ্রেণি শিক্ষক রাখা হচ্ছে, যাতে হোস্টেলে অবস্থানরত শিক্ষার্থীরা এই ব্যাপারে মুখ না খুলে। পুর্ব ঘোষিত নোটিশ ছাড়াই কর্মসূচি পালন, সহ শিক্ষামূলক কার্যক্রম নেই,সরকারি নিয়মে ৩ বছর পর পর হোস্টেল সুপার পরিবর্তনের নিয়ম থাকলে ও তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হচ্ছেনা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন শিক্ষক বলেন, ‘আমরা শিক্ষক প্রশাসনের আওতায় কাজ করি। তাই বেশ কিছু অনিয়ম হলে ও আমরা কিছু বলতে পারিনা। তিনি আরো বলেন,ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ দায়িত্ব নেওয়ার পর সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্যে কোনো প্রকার উন্নিয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে পারছেন না। তাড়াছা তার মান-সম্মান ক্ষুন্ন করা জন্য বিভিন্ন ধরনের ষড়যন্ত্র চলছে প্রতিনিয়ত।’

শিক্ষার্থীরা জানায়, ‘দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সিন্ডিকেটের ষড়যন্ত্র বেড়েই চলছে। এ ধরনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রশাসন একে ওকে দোষ দিয়েই দায় সারতে চাচ্ছে।’

তাছাড়া অত্র কলেজ প্রশাসনের সিন্ডিকেট প্রধান সদ্য অবসর নেয়া অধ্যক্ষ তার কলেজ উদ্ভাসন ২০১৯ লেখায় তিনি পরিষ্কার ভাবে বর্তমান নির্বাচিত ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও ঢাকা-১০ আসনের সাবেক এমপি জনপ্রিয় নেতা ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এবং মাউশি,শিক্ষা মন্ত্রনালয় এর উপর মিথ্যা দায় চাপিয়ে দিয়েছেন। সিন্ডিকেটের অনিয়মের বিরুদ্ধে কথা বলতে গেলে শিক্ষার্থীদের সাথে দুর্ব্যবহার সহ পুলিশি হয়রানির হুমকি ও দেয়া হচ্ছে। সিন্ডিকেটের মাধ্যমে আর্থিক অনিয়মের কারণে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন কর্মকান্ড বাধাগ্রস্ত হচ্ছে, বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষার্থীরা।

অবিলম্বে এ বিষয়ে ব্যবস্থাগ্রহণ এবং সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

আর পড়ুন-