চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলায় করোনার উপসর্গ নিয়ে ছেলের মারা যাওয়ার পর নমুনা পরীক্ষায় প্রতিবেদন ‘পজিটিভ’ এসেছিল। এর ১০ দিনের মাথায় একই উপসর্গ নিয়ে মারা যান বাবা। এর দুই দিন পর মারা যান মা। আজ সোমবার মা–বাবার করোনা পরীক্ষার প্রতিবেদনও পজিটিভ এসেছে।

কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. সালাহ উদ্দিন মাহমুদ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, কচুয়া উপজেলার গোহট উত্তর ইউনিয়নের পালগিরী গ্রামের ওই তরুণ গত ১৫ মে ঢাকা থেকে বাড়ি আসেন। কিন্তু তিনি কাউকে বিষয়টি না জানিয়ে বাড়ির অন্যদের সঙ্গে স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করেন। ১৭ মে সকালে নিজ বাড়িতেই তাঁর মৃত্যু হয়। তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে পাঠালে চার দিন পর আসা প্রতিবেদনে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ২৮ মে সকালে তাঁর বাবাও করোনার উপসর্গ শ্বাসকষ্ট নিয়ে মারা যান। ওই দিন মৃত বাবা ও তাঁর জীবিত মায়ের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। কিন্তু প্রতিবেদন আসার আগেই ৩০ মে বেলা সাড়ে ১১টায় তাঁর মায়েরও মৃত্যু হয়।

কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. সালাহ উদ্দিন মাহমুদ জানান, কচুয়ায় এই দুজন ছাড়াও কচুয়া থানার এক পুলিশ সদস্যের করোনা পজিটিভ প্রতিবেদন এসেছে।