মুন্সীগঞ্জে আইসোলেশনে থাকা তিনজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। তিন জনের মধ্যে একজনের করোনা আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে ছিলো। বাকী দুইজনের করোনা উপসর্গ ছিল কিন্তু করোনায় পাঠানো সোয়াবের রিপোর্ট এখন পর্যন্ত আসেনি।

বুধবার সকাল সাড়ে ৭টায় ১জন এবং বাকী দুইজন সাড়ে ১০টায় মৃত্যু বরণ করে। মৃত্যু ব্যক্তিরা হলো জহিরুল ইসলাম (৪৫) তার বাড়ি মোক্তারপুরে। সে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় মৃত্যু বরণ করে। সকাল সাড়ে ১০টায় মৃত্যু বরণ করে মাসুদ হাসান (৫৫) তিনি করোনায় আক্রান্ত। তার বাড়ী টংগীবাড়ি উপজেলার পাইকপাড়ায়। অপর ব্যক্তি সিরাজুল ইসলাম (৪০) তার বাড়ি মুন্সীগঞ্জ শহরের ইদ্রাকপুরের সে সকাল সাড়ে ৭টায় মৃত্যু বরণ করে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন আইসোলেশনে কর্মরত সিনিয়র স্টাফ নার্স মনিরা হক। 

মনিরা হক জনান, মৃত্যু জহিরুল ইসলামের পূর্ব থেকেই ডায়েবেটিকস ও কিডনী সমস্যা ছিল। বর্তমানে করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের আইসোলেশনে ছিলেন। টংগীবাড়ি পাইকপাড়ার মাসুদ হাসান হার্টের সমস্যাসহ করোনা আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে ছিলেন। ইদ্রাকপুরের সিরাজুল ইসলামও করোনা উপসর্গ নিয়ে সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে ছিলেন। ইদ্রাকপুরের করোনায় মৃত্যু ব্যাক্তির নাম সিরাজ মুন্সীগঞ্জ লঞ্জঘাট টোল আদায়ের কাজ করতেন। ইদ্রাকপুর জিয়র মন্দিরের কাছে সে ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন। তার গ্রামের বাড়ি সদরের হোগলা কান্দী গ্রামে। 


মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সুমন কুমার বণিক জানান, তিনজনের লাশই সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে রয়েছে। ডব্লিউএইচও’র নির্দেশনা মোতাবেক লাশের দাফন করা হবে। মুন্সীগঞ্জ ইসলামী ফাউন্ডেশনের কর্তব্যরত লাশ দাফন কাপনে ব্যক্তিরাই যার যার পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করবেন।