বড় অসময়েই চলে গেলেন সাংবাদিক আবুল হাসনাত। তিনি ফরিদগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক, ফরিদগঞ্জ বঙ্গবন্ধু সরকারি কলেজের ছাত্র সংসদের ছাত্রলীগ মনোনীত সাবেক ভিপি প্রার্থী, ফরিদগঞ্জ আওয়ামী গুনীজন স্মৃতি সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাংবাদিক আবুল হাসানাত হাশেম করোনার উপসর্গ নিয়ে গতকাল চাঁদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।
ইন্না-লিল্লালি….রাজিউন।


গত ৩০ মে রাতে জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। মৃত্যকালে স্ত্রী, দুই সন্তানসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

মৃত্যুর দুইঘন্টা আগে নিজের ফেসবুক টাইমলাইনে সকলের কাছে দোয়া চেয়ে একটা স্ট্যাটাস দিয়ে যান। স্ট্যাটাসটি হুবহু দেওয়া হলো, ‘আমার অবস্থা ভালোনা। আমাকে সবাই মাফ করে দিবেন। আমার সন্তানদের একটু দেখে রাখবেন। আমিন।’


সাংবাদিক আবুল হাসানাতের মৃত্যু সংবাদ শুনে ফরিদগঞ্জ রাজনীতিতে শোকের ছায়া নেমে আসে। অনেকেই মরহুম এর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে ফেসবুকে বিভিন্ন স্ট্যাটাস দেন। তারা সাংবাদিক আবুল হাসানাত এর রাজনৈতিক জীবনের স্মৃতিচারণ করে বলেন তিনি ছিলেন একজন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতিবিদ। যাকে দিয়ে কখনই প্রতিহিংসার রাজনীতি হয়নি। তিনি কখনই অর্থের কাছে নিজের আদর্শকে বিক্রি করেননি।