লাদেন

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সংসদে দেওয়া ভাষণে জঙ্গিগোষ্ঠী আল কায়েদার সাবেক প্রধান ওসামা বিন লাদেনকে ‘শহীদ’ বলে মন্তব্য করার পর বিরোধীদলীয় এমপি’দের তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন। একজন ‘চরম সন্ত্রাসী’কে শহীদ আখ্যা দিয়ে ইমরান খান সহিংস চরমপন্থাকেই প্রকাশ্যে সমর্থন দিচ্ছেন বলে অভিযোগ তাদের।

গত ২৫ জুন পাকিস্তানের সংসদে দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, “আমেরিকানরা যখন অ্যাবোটাবাদে ঢুকে ওসামা বিন লাদেনকে হত্যা করে, তাকে শহীদ করে, তখন আমরা পাকিস্তানিরা কেমন বিব্রত বোধ করেছিলাম তা আমি কখনও ভুলব না।’’

২০১১ সালের মে মাসে মার্কিন নেভি সিলের সদস্যরা পাকিস্তানে ঢুকেই অ্যাবোটাবাদে অভিযান চালিয়ে হত্যা করে। এবং এ অভিযানের ব্যাপারে পাকিস্তানকে আগে থেকে কিছুই জানাইয়নি যুক্তরাষ্ট্র। লাদেদ যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ারে সন্ত্রাসী হামলার হোতা।

ওসামা বিন লাদেনকে ‘শহীদ’ আখ্যা দেয়ার করে সঙ্গে সঙ্গেই সংসদে দাঁড়িয়ে ইমরানের এমন মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানান বিরোধীদলীয় নেতা ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী খাজা আসিফ। তিনি বলেন, “লাদেন একজন ‘চরম সন্ত্রাসী’ ছিলেন। তিনি আমাদের দেশকে ধ্বংস করেছেন। আর (খান) তাকেই একজন শহীদ বলছেন।”

আর পাকিস্তান পিপলস পার্টির নেতা বিলওয়াল ভুট্টো প্রধানমন্ত্রী ইমরানের মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে বলেছেন, ওসামা বিন লাদেনকে শহীদ উল্লেখ করে ইমরান সহিংস চরমপন্থাকেই তোষণ করছেন।

পাকিস্তানের বিশিষ্ট সমাজকর্মী মীনা গবীনা টুইটারে সমালোচনা করে লেখেন, “সাম্প্রতিক সময়ে সন্ত্রাসের কারণে মুসলিমরা বিশ্বব্যাপী বৈষ্যম্যের শিকার হয়ে কঠিন সংগ্রাম করছে। আর এর মধ্যে আমাদের প্রধানমন্ত্রী ওসামা বিন লাদেন-কে শহীদ আখ্যা দিয়ে পরিস্থিতি আরো খারাপ করছেন!”

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সাম্প্রতিক একটি প্রতিবেদনে বলা হয়, পাকিস্তান ‘আঞ্চলিকভাবে সক্রিয় সন্ত্রাসী গোষ্ঠী’গুলোর জন্য নিরাপদ আশ্রয়স্থল। এই বিষয়টি নিয়ে পার্লামেন্টে কথা বলার সময় প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান লাদেনকে নিয়ে এমন মন্তব্য করেন।