অঞ্জন রায়

চীনের বাজারে আরও পাঁচ হাজারের বেশি পণ্যে শুল্কমুক্ত রফতানি সুবিধা পেয়েছে বাংলাদেশ। এটিকে ভারতীয় গণমাধ্যম জি বাংলা খবর করেছে- ভারতকে চাপে ফেলতে বাংলাদেশকে ‘খয়রাতি’ চিনের! এমন খবরে সমালোচনার ঝড় উঠেছে বাংলাদেশে। আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযোগ উঠে, আনন্দবাবাজারে প্রকাশিত সংবাদটি লিখেছেন অঞ্জন রায়।

‘লাদাখের পরে ঢাকাকে পাশে টানছে বেজিং’– শিরোনামে প্রকাশিত আনন্দবাজারের সংবাদটিতে বাংলাদেশকে কটাক্ষ করে লিখা হয়েছে, ““বাণিজ্যিক লগ্নি আর খয়রাতির টাকা ছড়িয়ে বাংলাদেশকে পাশে পাওয়ার চেষ্টা নতুন নয় চিনের। লাদাখে ভারতের সঙ্গে সীমান্ত-সংঘর্ষে উত্তাপ ছড়ানোর পরে ফের নতুন উদ্যমে সে কাজে নেমেছে বেজিং। শুক্রবার বাংলাদেশের জন্য বিশেষ সুবিধার কথা ঘোষণা করেছে তারা। তাতে বাংলাদেশ থেকে রফতানি হওয়া অতিরিক্ত ৫১৬১টি পণ্যে শুল্ক না-নেওয়ার কথা বলা হয়েছে।”

বাংলাদেশ
এভাবেই বাংলাদেশকে কটাক্ষ করেছে ভারতীয় দুটি গণমাধ্যম।

কলকাতার আনন্দবাজারে লিখেন বাংলাদেশী সাংবাদিক অঞ্জন রায়, তবে আনন্দবাজারে প্রকাশিত এই লিখাটি তিনি লিখেননি দাবি করেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের ভেরিফাইড আইডি থেকে তিনি লিখেছেন- “আমি দায়িত্ব নিয়ে বলছি– আলোচিত চিন বিষয়ের লেখাটি আমার নয়। সবার জন্য শুভকামনা। কল্যান হোক।”

তিনি আরও লিখেছেন- “যে লেখা আমার নয়, তার দায় আমার ওপরে চাপাতে চাওয়াটা সত্যিই বেদনাদায়ক। অনেকে ভুল বুঝছেন, সে কারনেই স্পষ্ট করি। একটি কাগজের ডিজিটাল ও প্রিন্ট এডিশনে দুজনে কাজ করেন। রিপোর্ট পিক করার সময় প্রিন্ট এডিশনের অনেক কপিই অনলাইনে আপলোড করা হয়। আমি কাজ করি ডিজিটাল এডিশনে– আমার প্রকাশিত প্রতিটি লেখার ইউআরএল এ dgtl- দিয়ে কপির সিরিয়াল নম্বর থাকে। এটিতে সেটি আছে কিনা সেটা দয়া করে দেখুন, দেখে আমাকে অভিযুক্ত করুন– সমালোচনা করুন, গালি দিন।”

আরও পড়ুন-