করোনা মহামারীতে বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। এই অদৃশ্য ভাইরাসে থমকে গেছে সারাদেশ। সারা বিশ্বের সাথে পাল্লা দিয়ে জ্যামিতিক হারে দেশব্যাপী বাড়ছে আক্রান্তের হার। এই সংকটময় পরিস্থিতিতে করোনা মোকাবেলায় আর্ত মানবতার সেবায় অনেকেই ভালোবাসার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন।

বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ভূমিকা সারাদেশব্যাপী ব্যাপক প্রশংসিত হয়। করোনার প্রাদুর্ভাব দিন দিন যেমন বাড়ছে, তেমন ছাত্রলীগের ব্যতিক্রমী কার্যক্রম নানাভাবে খবরের শিরোনাম হচ্ছে। করোনার শুরু থেকেই বিভিন্ন ভাবে সারা দেশে ছাত্রলীগের কাজগুলো সাধারণ জনগনের মাঝে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। কখনো অসহায়দের খাদ্য সামগ্রী দিয়ে, কখনো ধান কেটে দিয়ে, কখনো ইফতার দিয়ে, কখনো রক্ত দিয়ে, কখনো ভালোবাসার উপহার নিয়ে সারাদেশে মানুষের পাশে ছিলো বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

‘ইশতিয়াক আহমেদ হৃদয়’। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী। তার বড় পরিচয় তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের অর্থ বিষয়ক উপ সম্পাদক। করোনা প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই আর্ত মানবতার সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন। তবে মাঝপথেই এপ্রিল মাসের ৮ তারিখ তিনি করোনা পজিটিভ হোন, এরপর নানা চড়াই উতরাই পেড়িয়ে পর পর দুবার তিনি নেগেটিভ হোন। নেগেটিভ হওয়ার পরেও তিনি নিজ গ্রামে নানা ভাবে মানুষের প্রয়োজনে ভালোবাসার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। এবার তিনি নিজের রক্তের প্লাজমা দুইজন আক্রান্ত ব্যক্তিকে ডোনেট করে ভালোবাসার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। এতে জানা গেছে, দুইজনই আগের চেয়ে সুস্থ হয়েছেন এবং দুইজনই ধীরে ধীরে সুস্থ হচ্ছেন।

এই অসাধারন মানবিক কাজের বিষয়ে জানতে চাইলে ইশতিয়াক আহমেদ হৃদয় বলেন, ‘২৭ তারিখ বুধবার দুপুর আনুমানিক ১২ টায় আমার বন্ধু নাজমুস শাহাদাত লিম, হৃদয় গাজী এবং সয়েল সাইন্স ডিপার্টমেন্টের জাকির স্যারের ফোন পেয়ে জানতে পারি ডিপার্টমেন্টের প্রফেসর শাকিল উদ্দিন আহমেদ স্যার করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসিইউতে আছেন। ডাক্তার প্লাজমা চাচ্ছেন। এরপর শুনেই আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে রওনা হলাম। গন্তব্য ছিলো পান্থপথের গ্রীন লাইফ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। সেখান থেকে গেলাম ঢাকা মেডিকেল নতুন বিল্ডিং এর দোতলার ব্লাড ব্যাংকে, তারপর প্লাজমা কালেকশন রুম। সব নিয়ম শেষ করে গতকাল রাতে এই প্লাজমার ১ ব্যাগ স্যারের শরীরের পুশ করলেন ডাক্তার। আরেক ব্যাগ চকবাজারের ব্যবসায়ী মনির হোসেন আংকেলের জন্য নিয়ে যান ওনার ছেলে ওমর ফারুক সাকিব ভাই। সাথে সাথেই পুশ করলেন। আমি আশা করছি স্রষ্টার কৃপায় প্রিয় দুজন মানুষ দ্রুত পুরোপুরি সুস্থ হয়ে আমাদের মাঝে ফিরে আসবেন। ওনাদের জন্য সকলে দোয়া করবেন।’

তিনি আরো আহবান জানিয়েছেন, ‘যারা করোনাকে জয় করেছেন তারা মনে সাহস রাখুন। প্লাজমা ডোনেশনে এগিয়ে আসুন। আপনার প্লাজমায় ২-৩ জন করোনা আক্রান্ত সিরিয়াস রোগীকে সুস্থ হতে সহযোগিতা করুন।’

উল্লেখ্য, আর্ত মানবতার সেবায় ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা সারাদেশে নানা ভাবে মানুষের সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন।