করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে লকডাউন শিথিল করে রাজধানীসহ সারা দেশের দোকানপাট ও শপিং মল খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সরকারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে রোজার অর্ধেক চলে যাওয়ার পর দোকানপাট ও শপিং মল সীমিত আকারে খোলা রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু ঈদ শপিংয়ে খুলবে না উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ শপিং মল যমুনা ফিউচার পার্ক। সর্বোচ্চ সুরক্ষা প্রস্তুতি থাকার পরও মানুষের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও যমুনা ফিউচার পার্কের কর্ণধার মোঃ নুরুল ইসলাম।

কর্তৃপক্ষ জানায়, যমুনা গ্রুপের কাছে দেশ আগে, জীবন আগে, ব্যবসা পরে। তাই কোটি কোটি টাকার ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমের পর এখন শপিং মলও বন্ধ রাখছেন দেশের মানুষের ভালবাসার তাগিদেই।

তারা আরও জানায়, মানুষের জীবনের নিরাপত্তা সবার আগে। সবদিক বিবেচনা করে মার্কেটের দোকান মালিকদের সাথে আলোচনা করে মার্কেট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। যমুনা গ্রুপ সবসময় মানুষের কল্যাণে কাজ করে। করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই নানাভাবে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে যমুনা গ্রুপ। খুব দ্রুতই করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হবে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন কর্তৃপক্ষ। সেসময় সবার জন্য যমুনা ফিউচার পার্ক উন্মুক্ত করে দেয়া হবে বলেও জানায় তারা।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ১০ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছে যমুনা গ্রুপ। এছাড়া করোনায় সশস্ত্র বাহিনী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ যারা সম্মুখে থেকে লড়াই করছেন তাদের কয়েক ধাপে সুরক্ষা সরঞ্জাম দেয় যমুনা গ্রুপ।

উল্লেখ্য, ১০ মে থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে দেশের দোকানপাট ও শপিংমলগুলো খোলার ঘোষণা দেয় সরকার।