করোনা মহামারীতে বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। এই অদৃশ্য ভাইরাসে থমকে গেছে সারাদেশ। সারা বিশ্বের সাথে পাল্লা দিয়ে জ্যামিতিক হারে দেশব্যাপী বাড়ছে আক্রান্তের হার। এই সংকটময় পরিস্থিতিতে করোনা মোকাবেলায় আর্ত মানবতার সেবায় অনেকেই ভালোবাসার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন।

বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ভূমিকা সারাদেশব্যাপী ব্যাপক প্রশংসিত হয়। করোনার প্রাদুর্ভাব দিন দিন যেমন বাড়ছে, তেমন ছাত্রলীগের ব্যতিক্রমী কার্যক্রম নানাভাবে খবরের শিরোনাম হচ্ছে। করোনার শুরু থেকেই বিভিন্ন ভাবে সারা দেশে ছাত্রলীগের কাজগুলো সাধারণ জনগনের মাঝে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। কখনো অসহায়দের খাদ্য সামগ্রী দিয়ে, কখনো ধান কেটে দিয়ে, কখনো ইফতার দিয়ে, কখনো রক্ত দিয়ে, কখনো ভালোবাসার উপহার নিয়ে সারাদেশে মানুষের পাশে ছিলো বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

এবার চট্টগ্রামে কোতোয়ালী থানার অফিসার্স ইনচার্জ জনাব মোহাম্মদ মহসিন’র আহবানে সাড়া দিয়ে প্লাজমা ব্যাংকের সদস্য হলেন সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহরিয়ার রোমন সহ তার ছাত্রলীগের তিন বন্ধু। আর্ত মানবতার সেবায় অন্যের জীবন বাঁচাতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এখন প্লাজমা ব্যাংকের সদস্য হলেন।

আজ দুপুর কোতোয়ালীর থানার অফিসার্স ইনচার্জ জনাব মোহাম্মদ মহসিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক স্ট্যাটাসে বলেন, ‘যত গালাগালই করুন না কেন এই দুর্দিনেও এগিয়ে এল সেই ছাত্রলীগই। আমাদের প্লাজমা ব্যাংকের সদস্য হলেন সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহরিয়ার রোমন। তার সাথে যুক্ত হয়েছেন আরও তার তিন বন্ধু- আমিনুল ইসলাম, মনির হোসেন এবং মোঃ এনান। করোনা আক্রান্তকে বাঁচাতে রক্ত দিবেন করোনাজয়ী এই চার ভাই। আর তাদের সমন্বয়ের কাজ করেছেন যুবলীগ নেতা নাছির উদ্দীন মিন্টু ভাই। তাদের সকলের প্রতিই কৃতজ্ঞতা। উনাদের অনুসরণ করুক করোনাজয়ী অন্য ভাইরাও। আপনারাও এগিয়ে আসুন। বাঁচান চট্টগ্রামকে। আপনাদের দিকেই তাকিয়ে চট্টগ্রাম।’